অদ্রীশ বর্ধন ও তাঁর কল্পবিজ্ঞানের গল্প “হাঙরের কান্না”

রচনা  : গৌরব চন্দ্র পাল

অলঙ্করণ : দেবজ্যোতি ভট্টাচার্য (চিত্রচোর)

Science Fiction এই আধুনিক সাহিত্য ধারাটির জন্ম পাশ্চাত্যে; ঊনবিংশ শতাব্দীতে৷ Science Fiction এই দুই বিপরীত ধর্মী শব্দের সমন্বয়ে “Science Fiction” শব্দবন্ধটির জন্ম৷ Science কথাটির অর্থ বিজ্ঞান বা সত্যানুসন্ধান৷ আর Fiction কথার অর্থ কল্পনা৷ অর্থাৎ “Science Fiction” হল কল্পনা ও বিজ্ঞানের যথার্থ সমন্বয়ে গড়ে ওঠা এক নতুন সাহিত্যিক ধারা৷ যার বাংলা প্রতিশব্দ কল্পবিজ্ঞান৷ আর এই বাংলা প্রতিশব্দ কল্পবিজ্ঞানশব্দবন্ধের জন্মদাতা হলেন প্রবাদপ্রতিম সাহিত্যিক শ্রী অদ্রীশ বর্ধন মহাশয়৷

     পাশ্চাত্যে প্রথম সায়েন্স ফিকশন কাহিনির রচয়িতা হলেন বিখ্যাত কবি পি. বি. শেলির স্ত্রী মেরি শেলি৷ তাঁর লেখা ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইনপ্রকাশিত হয় ১৮১৮ সালে৷ কিন্তু তখনও সায়েন্স ফিকশনকথাটি মানুষের অজানা ছিল৷ মেরি শেলির ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন প্রকাশের ৩৩ বছর পর ১৮৫১ সালে Willam Wilson তাঁর “A Little Earnest Book upon a Great Old Subject” নামক একটি প্রবন্ধ বইয়ে ‘Science Fiction’ কথাটি প্রথম ব্যবহার করেন৷ কিন্তু তখনও সায়েন্স ফিকশনকথাটি সেভাবে প্রচলিত হয়নি৷ ১৯২৯ সালে হিউগো গার্নসব্যাক কল্পবিজ্ঞান পত্রিকা সায়েন্স ওয়াণ্ডার স্টোরিজপ্রকাশ করেন তখন পত্রিকায় প্রকাশিত গল্পগুলির ধরন বোঝাতে সায়েন্স ফিকশনকথাটি ব্যবহার করেন৷ তখন থেকেই পাশ্চাত্যে সায়েন্স ফিকশনশব্দবন্ধটি ব্যাপকভাবে প্রচলিত হয়৷ বাংলা সাহিত্যে প্রথম কল্পবিজ্ঞানের রচনা হিসেবে ধরা হয় জগদীশচন্দ্র বসুর নিরুদ্দেশের কাহিনীকে৷ রচনাটি প্রকাশিত হয় ১৮৯৬ সালে৷ যদিও তার পূর্বে জগদানন্দ রায় রচনা করেছিলেন শুক্রভ্রমণ৷ তবে গল্পে স্বপ্নে শুক্রগ্রহে বেড়াতে যাবার কথা থাকলেও তা কল্পবিজ্ঞান হয়ে ওঠেনি৷ তারপর থেকে বিজ্ঞান বিষয়ক গল্প, বিজ্ঞান-নির্ভর গল্প, বিজ্ঞান-ভিত্তিক গল্প ইত্যাদি নামে বিভিন্ন রচনা প্রকাশিত হলেও কল্পবিজ্ঞান নামটি বাংলায় তখনও ব্যবহৃত হয়নি৷ ১৯৬৩ সালে সায়েন্স ফিকশনএর বাংলা প্রতিশব্দ কল্পবিজ্ঞানশব্দবন্ধটি সর্বপ্রথম ব্যবহার করেন অদ্রীশ বর্ধন৷ তিনি আকাশ সেন ছদ্মনামে আশ্চর্য!” নামক পত্রিকা প্রকাশের সময় কল্পবিজ্ঞানকথাটি প্রয়োগ করেন৷ আর এটিই বাংলা ভাষায় কল্পবিজ্ঞানের প্রথম পত্রিকা ৷ সেই সময় থেকেই কল্পবিজ্ঞান নামটিই চলে আসছে৷ আধুনিক এই সাহিত্য ধারাটি বাংলায় দ্রুত জনপ্রিয়তা লাভ করে৷ প্রেমেন্দ্র মিত্র, ক্ষিতীন্দ্রনারায়ণ ভট্টাচার্য, পরশুরাম, লীলা মজুমদার, হেমেন্দ্র কুমার রায়, সত্যজিৎ রায়ের মত বিখ্যাত লেখকরা এই ধারাকে সমৃদ্ধ করে তোলেন৷ সেই ধারাতেই অদ্রীশ বর্ধনের নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য৷

     অদ্রীশ বর্ধন বাংলা কল্পবিজ্ঞানের ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ ও জনপ্রিয় করে তোলেন৷ আশ্চর্য!” পত্রিকার প্রথম সংখ্যায় এইচ. জি. ওয়েলসের টাইম মেশিনএর অনুবাদ করেন৷ এরপর তিনি একের পর বিদেশি কল্পবিজ্ঞান কাহিনির অনুবাদ করতে থাকেন৷ তিনি প্রেমেন্দ্র মিত্র ও সত্যজিৎ রায়ের যৌথ উদ্যোগে সায়েন্স ফিকশন সিনে ক্লাবপ্রতিষ্ঠা করেন৷ কিছুদিন পর নানা সমস্যায় আশ্চর্য!” পত্রিকা বন্ধ হয়ে যায়৷ বন্ধ হয়ে যায় ক্লাবটিও৷ ১৯৭৫ সালে আবার নতুন করে ফ্যানট্যাসটিকপত্রিকা শুরু করেন৷ সমালোচক আত্রেয়ী সিদ্ধান্ত তাঁর রচনাগুলিকে তিন ভাগে ভাগ করেছেন মৌলিক রচনা, অনূদিত রচনা ও সম্পাদিত রচনা৷ মৌলিক রচনাগুলির মধ্যে অন্যতম হল প্রফেসর নাটবল্টু সমগ্র, বিশ্ববিখ্যাত সায়েন্স ফিকশন, গোয়েন্দা ইন্দ্রনাথ রুদ্র, কিশোর সায়েন্স ফিকশন, অমানুষিকী, পাতায় পাতায় রহস্য, আমার মা সব জানে, মিলকগ্রহে মানুষ ইত্যাদি৷ অনূদিত গ্রন্থের মধ্যে উল্লেখযোগ্য টার্জন সমগ্র, কেস অফ চালর্স ডেক্সটার ওয়ার্ড, সায়েন্স ফিকশনের দানব মিউজিয়াম ইত্যাদি৷ সম্পাদিত গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে সবুজ মানুষ, ফ্যানট্যাসটিক, সেরা কল্পবিজ্ঞান অমনিবাস, আজগুবি গল্প, ছোটদের সেরা কল্পবিজ্ঞান ইত্যাদি৷

     অদ্রীশ বর্ধন কল্পবিজ্ঞানের গল্প লিখেছেন প্রচুর, যা বাংলা সাহিত্যের অন্যতম সম্পদ৷ তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল রোনা, কালোচাকতি, সাগর দানব, বেলুন পাহাড়ের বিচিত্র কাহিনী, রঙিন কাচের জঙ্গল, উল্কা, বৈজ্ঞানিক কুমারটুলি, মলিকিউল মানুষ ইত্যাদি৷ এরকমই একটি কল্পবিজ্ঞানের বিখ্যাত গল্প হাঙরের কান্না৷ তাঁর সম্পাদিত ছোটোদের সেরা কল্পবিজ্ঞানগ্রন্থে গল্পটি সংকলিত হয়৷ এখন বিবেচ্য গল্পটি কতটা কল্পবিজ্ঞান হিসাবে সার্থক হয়েছে৷ গল্প শুরু হয়েছে সুজিত নামক একটি ছেলে তার দিদির বাড়ি বেড়াতে যায়৷ জামাইবাবু ফরেস্ট অফিসার৷ জামাইবাবু বনের নেকড়েদের ট্র্যানকুলাইজার দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে গলায় রেডিও ট্রান্সমিটার লাগানো বেল্ট পরিয়ে ছেড়ে দেন এবং রেডিও সিগন্যাল ফলো করে নেকড়েদের সমন্ধে তথ্য সংগ্রহ করেন৷ এক দলছুট নেকড়ের গলায় ট্র্যান্সকুলাইজার পরিয়ে দেন এবং রেডিও সিগন্যাল ফলো করে সুজিত ও জামাইবাবু এক নির্জন জায়গায় পৌঁছে যান৷ সেখানে এক অদ্ভুত নীরবতায় সুজিত ও জামাইবাবু বুঝতে পারেন এক ভয়ঙ্কর জায়গায় চলে এসেছেন৷ যেখানটা মৃত্যুপুরীর মত স্তব্ধ তবুও যেন মৃতের রাজত্ব নয়৷ কোনো এক অদৃশ্য শক্তি যেন তাদের লক্ষ্য রাখছে৷ এরকম এক গা ছমছমে রহস্যময় পরিবেশ দিয়ে গল্প শুরু হয়েছে৷ যেহেতু গল্পটি কিশোরদের জন্য রচিত তাই কোনো জটিলতায় না গিয়ে পাঠকের দৃষ্টি আকৃষ্ট করার জন্য এরকম গা ছমছমে পরিবেশের সৃষ্টি করেছেন৷ আসলে তাঁর কল্পবিজ্ঞানের কাহিনিগুলিতে বিজ্ঞানের জটিলতা খুব একটা দেখা যায় না৷ তাঁর কল্পবিজ্ঞানে বিজ্ঞান অপেক্ষা কল্পনার প্রাধান্য থাকে বেশি৷ এই গল্পও তার ব্যতিক্রম নয়৷ তিনি গ্রন্থের শুরুতেই ভূমিকাংশে বলেছেন -“কিন্তু যেসব গল্পে স্কুলমাস্টারি হয়েছে— বিজ্ঞান নিয়ে বাড়াবাড়ি করতে গিয়ে গল্পগুলোকে ছিবড়ে অথবা শুকনো খটখটে করে ফেলা হয়েছে— সে সব গল্প যারা পড়েছে— তারা কল্পবিজ্ঞানের নাম শুনলেই ভয় পায়৷ ছোটোদের গল্প হোক গল্পের মতোই—৷ তাই তিনি গল্পে বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যার মত জটিলতায় যাননি, কেবল বিজ্ঞানের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনার দিকটি তুলে ধরেছেন৷ তাই তারপর গল্পে দেখা যায় সেই নির্জনবনে এক বুড়ো অথচ দুষ্ট বিজ্ঞানীর ডেরায় চলে যায় সুজিত ও সুজিতের জামাইবাবু৷ যে বুড়ো বিজ্ঞানী তিনযুগ ধরে সাধনা করেছে প্রজননবিদ্যা নিয়ে৷ সুজিতদের নিয়ে এবার এক্সপেরিমৈন্ট করতে চান৷ জামাইবাবুর সঙ্গে নেকড়ের ও সুজিতের সঙ্গে হাতির বিয়ে দিয়ে নেকড়েমানুষ ও গণেশের মতো প্রাণীর জন্ম দিতে চান৷ কিন্তু তা শেষ পর্যন্ত আর হয়ে ওঠে না৷ জামাইবাবু বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে বুড়ো বিজ্ঞানী ও তাঁর সাকরেদ গরিলা সুন্দরী টুনটুনিকে বোকা বানিয়ে, পায়ের কাছে লুকিয়ে রাখা ছোট্ট বন্দুক দিয়ে গরিলাকে হত্যা করে এবং বন্দুকের বাঁট দিয়ে বিজ্ঞানীকে অজ্ঞান করে দেয়৷ খাঁচা ভর্তি নেকড়ের কাছে জ্ঞানহীন বুড়ো বৈজ্ঞানিককে ফেলে দিয়ে সেখান থেকে তারা পালিয়ে যায়৷ গল্প এখানেই শেষ৷

     কল্পবিজ্ঞান কাহিনির বৈশিষ্ট্যগুলি প্রায় সবই ফুটে উঠেছে খুব সুন্দর ভাবে৷ যেমন কল্পবিজ্ঞানে লেখক আগামী দিনের কথা বলবেন৷ বিজ্ঞানের নতুন আবিষ্কার ও নতুন প্রযুক্তির কথা বলবেন৷ হাঙরের কান্নাগল্পেও দেখা যায় এক বুড়ো দুষ্টু বিজ্ঞানী যে তিন যুগ ধরে সাধনা করেছেন প্রজননবিদ্যা নিয়ে৷ ল্যাবরেটরিতে টেস্টটিউব বেবী বানানোর কথা বলেছেন এক যুগ আগে৷ এমনকি বুড়ো বিজ্ঞানী জানায় আমি এখন কোথায় এগিয়ে গিয়েছি ধারণাও করতে পারবি না৷ মানুষ মেয়ে বিয়ে না করেও বাচ্চার বাবা হচ্ছি৷ আমার বাচ্চা জন্মাচ্ছে কখনো হাঙরের পেটে, কখনো বোয়ালের পেটে, কখনো কুমীরের পেটে৷আর সুজিতের সঙ্গে হাতির বিয়ে দিয়ে গণেশ জন্মায় কিনা দেখতে চান৷ সুজিত ভয় পেলেও জামাইবাবু রসিকতা করে বলেন-‘দূর বোকা! এক্সপেরিমেন্ট ইজ এক্সপেরিমেণ্ট৷ কত বড় একটা সৃষ্টি হতে যাচ্ছে ভাবতে পারিস? গণেশের বাবা হবি তুই৷ কম ভাগ্যের কথা?’ আর এখানেই বৈজ্ঞানিক সম্ভাব্যতার পাশাপাশি মিশে যায় মজার আবহ৷ গল্পে টুনটুনি নামে এক বিশাল চেহারার গরিলা সুন্দরীকে পাওয়া যায়৷ যার মাথায় ডলফিনের ব্রেন লাগানো যা মানুষের আইকিউ থেকে বেশি৷ আর এই রকম বৈজ্ঞানিক ঘটনা (রিকমবাইন্যান্ট জীন) কে কেন্দ্র করেই কাহিনি অাবর্তিত হয়ে পরিণতি লাভ করেছে৷ যা কল্পবিজ্ঞানের গল্প হিসাবে সার্থক হয়ে উঠেছে৷

গ্রন্থঋণঃ

) অদ্রীশ বর্ধন, ছোটদের সেরা কল্পবিজ্ঞান(সম্পাদিত), শশধর প্রকাশনী, কলকাতা, প্রথম প্রকাশ, ১৯৯২৷

) সাহিত্যতক্কো, বসন্ত ১৪২১, বাংলা সাহিত্যে কল্পবিজ্ঞান, সম্পাঃ উদয় রতন মুখার্জী, তৃতীয় বর্ষ, ষষ্ঠ সংখ্যা৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *