সম্পাদকীয়

কল্পবিশ্ব সম্পাদকমণ্ডলী

কেমন আছেন বন্ধুরা? আজ স্বাধীনতা দিবসের প্রাক্কালেও যেন এক বড় কঠিন সময়ের টানেলের ভিতরে ঢুকে পড়েছে আমাদের দেশ। কিন্তু মানব সভ্যতা শেষ পর্যন্ত সেই টানেলের ভিতর থেকে বেরিয়ে আসবই, এই আত্মবিশ্বাস আমাদের রয়েছে। আবারও এক রৌদ্রস্নাত পৃথিবীতে দেখা হবে। আপাতত অপেক্ষা আর সাবধানতা অবলম্বন করা ছাড়া উপায় নেই।

     ১০,০০০ বছর আগে মানুষ কৃষিজীবী হয়। আর তখনই শুরু হয় একসঙ্গে থাকা। একত্রে বাস করা। এই সামাজিক জনজীবনেই ছোঁয়াচে অসুখ মহামারীর রূপ ধরতে শুরু করে। ইতিহাসে সবচেয়ে পুরোনো মহামারীর দেখা মেলে বোধহয় ৪৩০ খ্রিস্ট পূর্বাব্দে এথেন্সে। এথেন্স ও স্পার্টার মধ্যে যুদ্ধ বাঁধে সেই সময়ে। তারপর থেকে বারবার সভ্যতা মুখোমুখি হয়েছে মহামারীর ভয়াল চেহারার। কিন্তু ২০২০-র পৃথিবীতে সংক্রমণের আতঙ্ক পৃথিবীজুড়ে এমনভাবে ছড়িয়ে পড়বে কে ভেবেছিল? চাই বা না চাই, পথেঘাটে মাস্ক পরিহিত চেনা মানুষের অচেনা অবয়বকে ঘিরে এক উৎকণ্ঠা মনের মধ্যে চোরাঘূর্ণি তৈরি করেই চ‌লেছে।

     এই অবরুদ্ধ সময়ে নতুন করে বইয়ের ভবিষ্যৎ হিসেবে উঠে এসেছে ইবুকের নাম। ছাপা বইয়ের সমান্তরালে ইবুকের অস্তিত্ব নতুন নয়। কিন্তু এই কঠিন সময় যেন চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল ঘরে বসে ছাপা বই হাতে না পেয়েও কেমন করে পাঠের এক অনন্য বিকল্প হয়ে উঠতে পারে ইবুক। আমরা মনে করি, ‘ছাপা বই বনাম ইবুক’ নয়, বরং ‘ছাপা বই ও ইবুক’— এভাবেই দেখতে হবে বিশ্বব্যাপী পাঠ্যাভ্যাসের বর্তমান অভিমুখকে। সময়ের দাবিকে যে অস্বীকার করার উপায় নেই সেকথা মেনে কল্পবিশ্বও শুরু করেছে ইবুক প্রকাশের কাজ। যদিও অনেক আগে থেকেই কল্পবিশ্ব পাঠকের কাছে নিয়ে এসেছে ইবুক। অতিমারী সেই চাহিদাকে আরও বাড়িয়ে দেওয়ায় আমাদের প্রকাশিত ইবুকের সংখ্যাও রাতারাতি বেড়েছে। পৃথিবীর যে কোনও প্রান্তে অবস্থানকারী আগ্রহী পাঠকরা ট্রু ইবুক ফরম্যাটে ও ন্যূনতম মূল্যে কিনতে পারেন কল্পবিশ্বের কল্পবিজ্ঞান ও ফ্যান্টাসি বইগুলি।

           মহারাষ্ট্রের ঔরাঙ্গাবাদে এর মধ্যে হয়ে গেল দশ দিন ব্যাপী কল্পবিজ্ঞানের অনলাইন সেমিনার বা ওয়েবিনার। অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে জানাই এই ওয়েবিনারে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল কল্পবিশ্ব। সম্পাদক দীপ ঘোষ, লেখক সুমিত বর্ধন, যশোধরা রায়চৌধুরী ও সোহম গুহ বক্তব্য রেখেছিলেন কল্পবিজ্ঞানের বিভিন্ন দিক নিয়ে। ওয়েবের মাধ্যমে সারা পৃথিবীর গবেষকরা শুনেছেন তাঁদের বক্তৃতা। 

     এবার আসি এই সংখ্যার প্রসঙ্গে। কল্পবিশ্বের নতুন সংখ্যার বিষয় ‘কল্পনায় অতিমারী’। আমরা বেশ কিছু নতুন ভাবনার গল্প পেয়েছি এই সংখ্যায়। অদ্রীশ বর্ধনের একটি অসামান্য গল্পের পুনঃপ্রকাশের পাশাপাশি প্রবীণ-নবীনের সমন্বয়ে এমন কিছু লেখা রইল যা নিশ্চিত ভাবেই পাঠকদের অতিমারী ও ভবিষ্যতের দুনিয়াকে কল্পবিজ্ঞানের আতসকাচের ভিতর দিয়ে দেখার সুযোগ করে দেবে। প্রথম বাংলা কল্পবিজ্ঞান কোনটি এই নিয়ে পাঠক, সম্পাদক ও গবেষকদের মধ্যে তর্ক-বিতর্কের শেষ নেই। এই প্রথম সম্পূর্ণ তথ্যগত প্রমাণসহ নির্মোহ দৃষ্টিতে বিষয়টিকে দেখে এই বিতর্কের অবসান করলেন কল্পবিশ্বের সম্পাদকদ্বয়। এই সংখ্যার প্রচ্ছদকাহিনিও ও বিশেষ আকর্ষণের দুটি প্রবন্ধ পাঠককে ঋদ্ধ করবে এবং নতুন ভাবনার বীজকে উসকে দেবে, এ আমাদের দৃঢ় প্রত্যয়। এছাড়াও রইল নিয়মিত বিভাগ।

     প্রিয় পাঠক, আপনার পাঠ শুভ হোক। সাবধানে থাকুন সবাই। সুস্থ থাকুন।

Leave a Reply




Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!