তৃতীয় বর্ষ প্রথম সংখ্যা

একটু দেরী হলেও চলে এলো কল্পবিশ্বের বিশেষ ফ্রাঙ্কেস্টাইন সংখ্যা। নিচের লিংকে ক্লিক করে পড়া শুরু করুন তবে। হ্যাপি রিডিং। কেমন লাগলো জানাতে ভুলবেন না।

টাইমস দে আর আ চেঞ্জিং।

     সময় বদলাচ্ছে। এবং দ্রুত। ২০১৬ সালে ‘কল্পবিশ্ব’-এর আত্মপ্রকাশ। তার পর থেকে একটু একটু করে মানুষের ভালবাসা আর উৎসাহে এগিয়ে চলা। এগোতে এগোতেই বুঝতে পারা, দু’পাশের দৃশ্যও বদলাচ্ছে। কোনও যাত্রাপথেরই সবটুকুই শিশুর আঁকা সরল সিনারি হতে পারে না। তবু যখন দেখা যায়, মাঝে মাঝেই পথের পাশে ফুটে উঠছে সুন্দর, তখন বোঝা যায়, স্বপ্নের পথে হাঁটায় কোনও ভুল নেই। হতে পারে না।

     আনন্দবাজার, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস-এর মতো সংবাদমাধ্যম স্বীকৃতি দিয়েছে বাংলার প্রথম কল্পবিজ্ঞান-ফ্যান্টাসি-হরর ওয়েবজিনকে। এশিয়ান এসএফ সোসাইটির ও স্প্যানিশ এসএফ ব্লগের আর্টিকেলেও উল্লেখ করা হয়েছে কল্পবিশ্বের কথা। বিশ্ববন্দিত কল্পবিজ্ঞান লেখক মার্গারেট অ্যাটউড তাঁর নিজের টুইটে স্বীকৃতি দিয়েছেন কল্পবিশ্বে প্রকাশিত ওঁর রচনার অনুবাদকর্মকে। পাঁচ বারের বুকার পুরস্কারে মনোনীত (২০০০ সালে সম্মানিত), নেবুলা, আর্থার সি ক্লার্ক অ্যাওয়ার্ড-সহ অসংখ্য সম্মানের শিরোপাধারী লেখিকাও যে কল্পবিশ্ব সম্পর্কে অবহিত, একথা জেনে অবাক হয়েছি আমরা। আর অনুপ্রেরণা পেয়েছি।

     উৎসাহ বেড়েছে। তাই সাহস করে বার্ষিক সংকলন এবার একটি নয়। তিনটি। একটি প্রকাশিত হয়েছে। বাকি দু’টিও প্রকাশিত হতে চলেছে। পাঠকদের অনুরোধে ইপাবের সঙ্গে সঙ্গে কল্পবিশ্বের মোবি সংস্করণের ইবুকও প্রকাশ করা শুরু হয়েছে। আরও নানা পরিকল্পনা দানা বাঁধছে। ক্রমশ প্রকাশ্য।

https://kalpabiswa.com/issue/issue9/

error: Content is protected !!