সূচীপত্র

এক ডজন কল্পবিজ্ঞান লিমেরিক

(১) নিছকই বাঙালি প্রায়। রোজ চাই মাছ ভাত শুক্তো। আবাস? নিকট অতি। গ্রহ তার এ’ গ্যালাক্সিভুক্ত। সে হলে ভ্যালেন্টাইন রুখবে

গ্রন্থ সমালোচনা – নিউ ইয়র্ক ২১৪০ – কিম স্ট্যানলি রবিনসন

উপন্যাস – নিউ ইয়র্ক ২১৪০ লেখক – কিম স্ট্যানলি রবিনসন জঁর – সায়েন্স ফিকশন সাব-জঁর – ক্লাইমেট ফিকশন (ক্লাই-ফাই) উপন্যাসটি

অগ্নিপথ ৮ : অগ্নিযোগ

স্থানঃ ভবিষ্যৎ কালঃ অজ্ঞাত পাত্রঃ সুমন সুমনার নোটবইতে আর কোনও গল্প লেখা ছিল না। সেইবার ওর সামনে দাঁড়িয়ে আর কোনও

অপার্থিব মেধার সন্ধানে

পর্ব ৩ আকাশবাণী “‘১৯৫৯ সালের এক বসন্তের দিনে’ – হ্যাঁ, আমেরিকার কর্ণেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক ফিলিপ মরিসন কথাগুলো ঠিক এ

এস. এফ.-এর রূপান্তর: বাংলায় কল্পবিজ্ঞান এবং সাম্রাজ্যিক টেকনো-সায়েন্স

Abstract in English In this paper, I look at current theories on global science fiction (sf) that are alert to

রা-চীন

বিস্ফোরণের প্রবল শব্দে ঘুম ভেঙে ধড়মড় করে উঠে বসে কমল। মোবাইলের ঘড়িতে দেখে রাত তখন বারোটা তেত্রিশ। টেনে টেনে কয়েকটা

হুয়ানের বইটা

কুয়াশায় চারদিক জড়িয়ে থাকলেও সকাল সকাল প্লেন ধরবার তাড়া ছিল। ঘুম থেকে উঠেই তৈরী হয়ে ছুটলাম। ঘুম চোখেই এয়ারপোর্টের তিন

পরিত্রাতা

২০৩৬ সালঃ স্টাডি সিস্টেম পাল্টেছে এখন। এখন আর জোর করে স্টুডেন্টদের অপ্রিয় বিষয়গুলো নিয়ে পড়াশোনা করতে হয় না। এখন প্রতি

উপসংহার

দুপুর থেকেই বৃষ্টি হচ্ছে আজ। ঠিক পাহাড়ি বৃষ্টি নয়, তবে কেমন যেন আকাশটা ধরে আছে। আজ দ্বাদশী, দুদিন হল আনুষ্ঠানিক

পেন্ডুলাম

সে ছিল কালের কয়েদি। জীবন ও মৃত্যু থেকে বহিষ্কৃত, এক আশ্চর্য বিষণ্ন জীব। সে তার সামনে দেখেছে সময়ের অনবরত আসা

কৌটো

(তন্ময় পুরকায়স্হর জবানবন্দি, অনুলিখন রাজকুমার রায়চৌধুরী) প্রথমেই বলে রাখি আমার নাম তন্ময় পুরকায়স্থ৷ আমি কেমিস্ট্রিতে এমএসসি পাশ করে একটা মোটামুটি

ভিত্তি

ব্যাঙের ছাতার মত মেঘগুলো পর পর আকাশে উঠছিল।      রাষ্ট্রনায়কদের আঙুলগুলো কোনো অদৃশ্য সুতোয় বাঁধা ছিল কিনা কেউ জানে না।

প্রলয়

প্রলয় উপস্থিত।      এভারেস্ট এর মাথার ওপর দাঁড়িয়ে থাকা মন্দিরের মতো বিল্ডিং ও তার পাশের রকেটের দিকে তাকিয়ে মায়ের

সবুজের হাতছানি

আলো ঝলমল মেট্রো স্টেশনের কাঁচের দরজার ওপারে ট্রেন এসে প্রতিদিনের মতোই দাঁড়াল। ঘড়িতে তখন বাজে সকাল সাতটা দশ। ট্রেনের সিটে

২০৩০ : স্বগতোক্তি

ঠকাং… ঠক… ঠকাং… ঠক… ঠকাং…      একটা আশ্চর্য ছন্দ ওই শব্দে। ভয়ানক বিরক্তিকর এবং একঘেয়ে সুর। যেন কোনও বিপদের পূর্বাভাস।

ইনটু দ্য স্টর্ম

আর্মির পায়ের শব্দ পেয়েই আনোয়ার সচকিত হয়ে উঠলেন। অবশ্য সেটাই স্বাভাবিক। কারণ এই সময়ে হয় তারা আনোয়ারকে গ্রেপ্তার করতেই আসছে,

নতুন পৃথিবী

জালের থেকে বুড়ো আঙ্গুলের মতো বড় একটা পোকাকে ছাড়িয়ে নিল হিলা। হ্রদের জলে ডুবিয়ে আঠাটা ছাড়িয়ে নিয়ে আমার দিকে এগিয়ে

মীরজাফর

“ড্যাম! হাউ দিস ক্যুড হ্যাপেন?”      “সর‍ি স্যার- ইট ওয়স মাই ফল্ট, বাট-বাট আই ডিড রেক্টিফাই ইট উইদিন সেকেন্ডস।”

ক্লাই-ফাই সিনেমা – রূপোলী আলোয় শেষের সেদিন

সয়লেন্ট গ্রিন ছায়াছবির এক আইকনিক ফ্রেম Det. Thorn: Ocean’s dying, plankton’s dying… it’s people. *Soylent Green is made out of

সাক্ষাতে ড্যান ব্লুম : আবহ-কল্পনা এবং ভবিষ্য-শহরের রূপরেখা

সাম্প্রতিককালে ‘স্ট্রর্ম-টেলার’ উপন্যাসের লেখক ডেভিড থ্রর্প স্মার্ট-সিটি-ড্রাইভ পত্রিকার পক্ষ থেকে একটি সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন, ক্লাই-ফাই ধারার পিতৃপুরুষ ড্যান ব্লুমের।    

পরিবেশগত বিপর্যয়

১) Aral সাগরকে কেন পরিবেশ সংক্রান্ত বিপর্যয়ের আদর্শ উদাহরণ বলা হয় কেন?      মধ্য এশিয়ার মধ্যে Aral সাগর, কিন্তু

আমাদের ভবিষ্যৎ – নতুন তুষারযুগ নাকি জলমগ্ন পৃথিবী?

আমাদের ধারণা পৃথিবীতে তুষারযুগ আসলেও তা আসবে খুব ধীরে ধীরে। কল্পবিজ্ঞান গল্প কিংবা সিনেমায় যেরকম নাটকীয় ভঙ্গিতে দেখান হয়, সেভাবে

পরিবেশ কাহিনি

১ ঠাণ্ডা! শৈত্য! শীতল! মস্তিষ্কের কেন্দ্রস্থলে এই একটাই সংকেত পোঁছাচ্ছে আপাতত। স্নায়ু-জালের শাখা-প্রশাখা গুলো এখনো অচেতনতায় আচ্ছন্ন। হঠাৎ একটা যান্ত্রিক

সম্পাদকীয়

প্রিয় কল্পবিশ্বের বন্ধুরা,      আবার এসেছে আষাঢ় আকাশ ছেয়ে – গ্রীষ্মের নির্মম দাবদাহের শেষে শান্তির আশ্বাস নিয়ে আসে বর্ষাকাল। কিন্তু

error: Content is protected !!